ফেসবুক অ্যাডের কিছু ভুল এবং সমাধান

Some-mistakes-and-solutions-of-Facebook-ads

দুরবিন নিউজ২৪,dorbinnews24

ফেসবুক অ্যাডের কিছু ভুল এবং সমাধান

ফেসবুক যারা বিজনেস করছেন তাদের একটাই অভিযোগ অ্যাড এ রেস্পন্স নেই, রিচ নেই, সেল নেই
এই লেখায় আমি ফেসবুক অ্যাডের কিছু ভুল ধরিয়ে দেয়ার চেস্টা করবো যা ঠিক করে নিলে আশা করি আপনার অনেক সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।
Read more about Facebook ads

অ্যাড অবজেক্টিভ সম্পর্কে ক্লিয়ার না থাকা
আমাদের দেশে অ্যাড অবজেক্টিভ চলে প্রোডাক্ট অথবা বিজনেস অনুযায়ী না, ট্রেন্ড অনুযায়ী, সবাই এটা করছে তাই আমিও এটা করবো, একবারও ভাবার চিন্তা করছি না যে এটা আমার বিজনেসের জন্য উপযুক্ত কিনা।


আমি যে কারনে অ্যাডটা চালাতে চাচ্ছি সেটা সফল হবে কিনা।
আপনাকে প্রথমে চিন্তা করতে হবে আপনি কি কারনে ফেসবুকে অ্যাডটা চালাচ্ছেন।
  • – আপনি কি আপনার ওয়েব সাইটের ট্র্যাফিক বাড়াতে চাইছেন?
  • – আপনি কি সেল বাড়াতে চাইছেন অথবা সরাসরি লিড চাইছেন আপনার ল্যান্ডিং পেজ থেকে
  • – নাকি আপনি এমন কিছু করতে চাইছেন যার ফলে আপনার প্রোডাক্ট অথবা সার্ভিস দ্রুত সেল হবে (ফেসবুকে সরাসরি পোস্টের মাধ্যমে আমরা যেটা করে থাকি)


তাই অ্যাড দেয়ার আগে আপনি অথবা আপনার টিম এক সাথে বসে, আলোচনা করে ঠিক করুন আপনি কি চাইছেন, কিভাবে চাইছেন, ম্যাসেজ চাইছেন কিন্তু সেটা এঙ্গেজমেন্ট অ্যাডে ম্যাসেজ বাটন যোগ করে এরপর চাইছেন, তাহলে লাইক, কমেন্ট ও আসলো আবার ম্যাসেজও আসলো, এভাবে চিন্তা করা যাবে না।

যদি ম্যাসেজ চান তাহলে ম্যাসেজ অবজেক্টিভে অ্যাড চালালেই ভালো হবে।
চাইছেন রিচ হোক, আপনার অ্যাডের কন্টেন্ট দেখে ক্রেতা আপনাকে কল করবে অথবা অন্যভাবে যোগাযোগ করবে তাহলে রিচের অ্যাড চালান, ম্যাসেজের না, ম্যাসেজের অ্যাডে এমনিতেই কম রিচ হয়।
বুঝতেই পারছেন অ্যাড অবজেক্টিভ ঠিক মত দেয়াটা জরুরি।


সঠিক ভাবে অডিয়েন্স টার্গেট না করা
বিলিয়ন মানুষ ফেসবুক ব্যবহার করে থাকে, তাই এখানে সম্ভাবনা অনেক যে আপনার প্রোডাক্ট অথবা সার্ভিসের অ্যাড ভুল মানুষের ভিড়ে হারিয়ে যেতে পারে, তাই সঠিক ভাবে অডিয়েন্স টার্গেট করা খুবই জরুরি।


৫০ মিলিয়নের উপর বিজনেস আছে ফেসবুকে, এবং এর মধ্যে অনেকেই ফেসবুক পেইড অ্যাড চালিয়ে থাকে যার অডিয়েন্স এবং আপনার অডিয়েন্স সেম তাই এখানে কম্পিটিশনও বেশি এটা সহজেই বুঝা যায়।


আর এতো অডিয়েন্সের মধ্যে অ্যাড চালিয়ে আপনি শুধু আপনার প্রতিযোগীর সাথে কম্পিটিশন করছেন সেটা কিন্তু না, আপনাকে কম্পিটিশন করতে হচ্ছে আপনার অডিয়েন্সের বন্ধু, পরিবার, কলিগ ইত্যাদিদের সাথেও।


এরজন্য আপনাকে যা করতে হবে
আপনাকে এমন কন্টেন্ট বানাতে হবে যা এঙ্গেজিং, এবং সেলের জন্য ভালভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে এমন কন্টেন্ট এরপর আপনি সঠিক কাস্টোমারের কাছে আপনার অ্যাড টার্গেট করেন, সেটা কত ছোট অথবা বড় সেটা মূল বিষয় না, মূল বিষয় হলো আপনাকে সঠিক অডিয়েন্সের কাছে যেতে হবে।


ভুল অ্যাড টাইপ ব্যবহার করা
প্রথমেই কিছু অ্যাড টাইপের কথা বলে নেই
  • – ফটো
  • – ভিডিও
  • – ক্যারোসেল
  • – স্লাইড শো
  • – ক্যানভাস
ইত্যাদি


এই সব অ্যাড আপনি আবার বিভিন্ন প্লেসে চালাতে পারেন যেমন
  • – ডেস্কটপে
  • – মোবাইলে
  • – রাইট হ্যান্ড সাইডবারে


আপনাকে বুঝতে হবে আপনার প্রোডাক্ট অথবা সার্ভিস অনুযায়ী আপনার জন্য কি ধরনের অ্যাড ঠিক আছে, ভিডিও নাকি ছবি নাকি স্লাইড শো, এরপর আপনাকে চিন্তা করতে হবে এটা আপনি কোন প্লেসমেন্টে শো করাবেন।
উদাহারনস্বরূপ এটা আমরা সবাই জানি ডেস্কটপ অ্যাডে সব থেকে বেশি কনভার্সন হয়, শুধু একটাই সমস্যা এটাতে খরচ অনেক হয় এবং কম্পিটিশন বেশি থাকে।


শুধু মাত্র সেল করার জন্য অ্যাড দেয়া
আরেকটা ফেসবুক অ্যাডের ভুল হলো শুধু সেল করার জন্য ফেসবুকে অ্যাড দেয়া, ব্যাপার টা এমন যে একজন সেলস পারসন প্রতিদিন আপনার বসার কলিং বের টিপে আপনাকে চূড়ান্ত পর্যায়ে বিরক্ত করে এটা জেনেও যে আপনি প্রোডাক্ট টি কিনতে আগ্রহী না।

তাই কিনুন কিনুন কিনুন না বলে বিভিন্ন রকম ভাবে অ্যাড এর সাথে কিভাবে কাস্টমারকে কানেক্ট করা যায় সেটা ভাবুন, প্রোডাক্ট বা সার্ভিস সেলের কথা না বলে প্রবলেম সল্ভের কথা বলুন।

মনে রাখবেন, বারবার বলি শুধু মাত্র বুস্ট আপনার সেলের একমাত্র কারন নয়, কাস্টোমারের সাথে সম্পর্ক, আপনার কোম্পানির বিশ্বাসযোগ্যতা, আপনার কোম্পানির ভ্যালু, আপনার কোম্পানিকে নিয়ে অন্য ক্রেতারা কি চিন্তা করছে সেগুলা সবকিছু প্রেজেন্ট করতে হবে আপনার ক্লায়েন্টের কাছে।

আমার এরকম সাজেশন মূলক লেখা নিয়ে বাজারে একটা বই আছে, “ফেসবুক মার্কেটিং” নামে, আগ্রহী হলে,নিয়ে নিতে পারেন, আমাকে ইনবক্স করতে পারেন।


অনেক অ্যাড চলে এবং অনেক কম বাজেটে চলে
আপনি ৫ দিনের একটা ক্যাম্পেইন করলেন, বাজেট ৫ ডলার, স্বাভাবিক ভাবেই এখানে আপনি রেস্পন্স কম পাবেন, সেলও কম আসবে (তবে আনকমন প্রোডাক্ট, কম্পিটিশন কম এমন প্রোডাক্টের ক্ষেত্রে ভিন্ন চিত্র দেখা যায়) আর আপনার পক্ষে সম্ভবও না ৫ দিনে ৫ ডলার করে ২৫ ডলারের অ্যাড চালানো, 

সে ক্ষেত্রে আপনি অ্যাডের সংখ্যা কমিয়ে দিয়ে সেই অ্যাডের বাজেটগুলা একটা অথবা দুইটা অ্যাডে নিয়ে কাজ করতে পারেন, বাজেট বেশি হবে, রেস্পন্স ও ভালো পাবেন, হ্যা সব সময় হয়তো আপনি অ্যাড চালাতে পারছেন না, কিন্তু সব সময় অ্যাড চালাতে গিয়ে অল্প বাজেটের জন্য আপনি কিন্তু কোন সময়ই ভালো রেজাল্ট পাচ্ছেন না।


ফেসবুক অ্যাডে সফলতা পাবার জন্য শুধু বাজেট আর সময় ঠিক করে অ্যাড দিয়ে দিলেই হবে না, আপনাকে আরো অনেক কিছু চিন্তা করতে হবে যা আমি উপরে আলোচনা করার চেস্টা করেছি। আশা করি কিছুটা হলেও উপকারে আসবে এই লেখাটি।

Leave a Reply