নরম্যানের আছে ৮০টি গাড়ি ও ডজনের বেশি বাড়ি।

দেহরক্ষীর ৮০ গাড়ি ও ডজনখানেক বাড়ি।

দুরবিন নিউজ২৪,dorbinnews24,Bangla News, bangla News paper,Bangla All News paper List,bangla khobor,Bollywood,hindi movie,new movie 2021,tamil movie দুরবিন নিউজ২৪,dorbinnews24,how to earn money online without investment,how to make money online in nigeria,how to earn money online with google,how to earn money online without paying anything,how to earn money online for students,how to earn money online in india,how to earn money online in bangladesh,how to earn money online philippines,how to make money online for free
২০১৮ সালে স্বাধীনতা দিবসের এক অনুষ্ঠানে মালাবির সাবেক প্রেসিডেন্ট পিটার মুথারিকা (মাঝে) ও তাঁর দেহরক্ষী নরম্যান চিসালে (বাঁয়ে)ছবি: এএফপি

তিনি মালাউইয়ের রাষ্ট্রপতির দেহরক্ষী ছিলেন। তাঁর নাম নরম্যান চিসালে। রাষ্ট্রপতির নিরাপত্তা রক্ষার পাশাপাশি নরম্যান সম্পদ বাড়ানোর দিকেও মনোনিবেশ করেছিলেন। মালাউইয়ের সাম্প্রতিক দুর্নীতিবিরোধী অভিযান অনুসারে নরম্যান ৮০ টি গাড়ি এবং এক ডজনেরও বেশি বাড়ির মালিক।

কাতার-ভিত্তিক আল-জাজিরা জানিয়েছে যে মালাবী দক্ষিণ-পূর্ব আফ্রিকার একটি দেশ। প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি পিটার মুথারিকার দেহরক্ষী ছিলেন নরম্যান চিসালে। নরম্যানের দুর্নীতি দমন কর্তৃপক্ষ সম্প্রতি নরম্যানের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেছে। দেখা গেছে যে নরমানের ৮০ টিরও বেশি গাড়ি রয়েছে। মার্সিডিজ বেনজ, রেঞ্জ রোভার, ল্যান্ড ক্রুজার সহ বিভিন্ন বিলাসবহুল গাড়ি রয়েছে। ২১ স্থাবর সম্পত্তিও রয়েছে। এর মধ্যে আবাসিক এবং বাণিজ্যিক ভবন অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

নরম্যান চিসালের নামে দুটি ব্যাংক অ্যাকাউন্টও জব্দ করা হয়েছে। ওই দুই ব্যাংকে প্রায় আড়াই লাখ ডলার পাওয়া গেছে। চিসালের নিকটাত্মীয় ও সহযোগীদের সম্পদও জব্দ করা হচ্ছে। সব মিলিয়ে প্রায় ২.২ মিলিয়ন ডলারের সম্পদ জব্দ করা হয়েছে। কথিত আছে যে নরম্যান কেবল প্রাক্তন রাষ্ট্রপতির দেহরক্ষীই ছিলেন না, তিনি দেশের অন্যতম ধনী ব্যক্তিও ছিলেন।

আল-জাজিরা জানিয়েছে যে ৪৫ বছর বয়সী নরম্যান চিসালে বহু মিলিয়ন ডলারের চুক্তিতে মধ্যস্থতা করছিলেন। অভিযোগ করা হয়েছে যে নরম্যান সিমেন্ট আমদানির জন্য ২০১৭-১৮ ব্যবসায়িক চুক্তিতে প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি পিটার মুথারিকার ট্যাক্স ছাড়ের সুবিধাটি অবৈধভাবে ব্যবহার করেছিলেন।

চিসালে তার কর্মজীবন শুরু হয়েছিল সামরিক বাহিনীর গোয়েন্দা বিভাগে কাজ করে। ২০০৯-এর পরে তাকে দেশের রাষ্ট্রপতির সুরক্ষা দেওয়ার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। গত বছরের জুন পর্যন্ত তিনি রাষ্ট্রপতির দেহরক্ষীর দায়িত্বে ছিলেন। এ সময় তার মাসিক বেতন ছিল দেড় হাজার ডলার।

মালবির দুর্নীতিবিরোধী নজরদারি বলছে যে নরমন বিভিন্ন অপরাধমূলক ক্রিয়াকলাপের মধ্য দিয়ে ভাগ্য গড়েছে তা বিশ্বাস করার উপযুক্ত কারণ রয়েছে। এ সম্পর্কে বিস্তারিত তদন্ত করা দরকার।

তবে, চিসালের আইনজীবী চানসি গন্ডি জানিয়েছেন, তার ক্লায়েন্ট বৃহস্পতিবার দেশটির উচ্চ আদালতে এই দখলের আবেদন করবেন। অন্যদিকে মালাউইয়ের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি পিটার মুথারিকা এই অপহরণে কোনও জড়িত থাকার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন।

এদিকে, সাবেক রাষ্ট্রপতির দেহরক্ষীর সম্পদের খবর স্থানীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে, যা মালাউইয়ের মানুষের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি করেছে। বিশেষ করে দেশের তরুণ সম্প্রদায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে।

Leave a Reply