‘মামুনুলের ভাগ্য’ তদন্ত কমিটিতে

তুমুল বিতর্কের পর ‘মামুনুলের ভাগ্য’ তদন্ত কমিটিতে

দুরবিন নিউজ২৪,dorbinnews24,Bangla News, bangla News paper,Bangla All News paper List,bangla khobor,Bollywood,hindi movie,new movie 2021,tamil movie দুরবিন নিউজ২৪,dorbinnews24,how to earn money online without investment,how to make money online in nigeria,how to earn money online with google,how to earn money online without paying anything,how to earn money online for students,how to earn money online in india,how to earn money online in bangladesh,how to earn money online philippines,how to make money online for free


উত্তপ্ত বিতর্কের পরে রিসর্টের ঘটনায় বিতর্কিত হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হকের ভাগ্য তদন্ত কমিটিতে ঝুলছে। রবিবার (১১ এপ্রিল) হাটহাজারী মাদ্রাসায় জরুরী বৈঠক চলাকালীন হেফাজতের প্রবীণ নেতারা মহিলা সহ মামুনুলের সোনারগাঁওয়ে বিভিন্ন অবরুদ্ধ ও বিতর্কিত কর্মকাণ্ড নিয়ে সোচ্চার ছিলেন। এ সময় তিনি তার বহিষ্কারেরও দাবি করেছিলেন। তবে ঢাকা ও চট্টগ্রামের কিছু প্রভাবশালী নেতা মামুনুলের পক্ষে অবস্থান নেওয়ায় এই উদ্যোগ থেমে যায়। পরে মামুনুলের তদন্তের জন্য তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়। 

২৯ শে মে উলামা-মাশায়েখ সম্মেলনে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল।এদিকে, বৈঠক শেষে হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী রিসোর্টের ঘটনা মামুনুল হকের ব্যক্তিগত বিষয় বলে মন্তব্য করেছেন। এক প্রশ্নের জবাবে আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী বলেছিলেন, “বৈঠকে মামুনুল হক বা অন্য কারও বহিষ্কারের বিষয়ে আলোচনা হয়নি।” রিসোর্টে ঘটনা মামুনুল হকের ব্যক্তিগত বিষয়। হেফাজতে ইসলাম এ বিষয়ে কথা বলবে না। মামুনুল হক এমনটাই বলেছেন। ‘বৈঠকে উপস্থিত সংগঠনের এক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, জরুরি বৈঠক চলাকালীন মামুনুলের রিসর্টের ঘটনা নিয়ে আলোচনা হয়েছিল। 

উপস্থিত অনেক সিনিয়র নেতা মামুনুলের আচরণের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে তাকে বহিষ্কারের দাবি জানান। কিন্তু ঢাকা ও চট্টগ্রামের প্রভাবশালী কয়েকজন নেতার বাধার কারণে মামুনুলকে বহিষ্কার করা ব্যর্থ হয়েছিল।জানা গেছে, যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকের ‘সোনারগাঁয়ের ঘটনা’ ঘটনার বিষয়ে গতকাল সকালে দারুল উলূম মুইনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসায় হিফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় নেতারা জরুরি সভা করেন। বৈঠকটি প্রায় চার ঘন্টা চলল এবং কেন্দ্রীয় কমিটির ২১ জন নেতা এতে উপস্থিত ছিলেন। রুদ্ধদ্বার বৈঠকের শুরুতে হেফাজতে ইসলামের নায়েব আমির মামুনুল হক ঘটনার কথা বলেছিলেন। 

তিনি হেফাজতে ইসলামকে বিতর্ক থেকে রক্ষা করতে মামুনুল হককে বহিষ্কারের পক্ষে ছিলেন। তারপরে একে একে কিছু নেতা মামুনুল হককে বহিষ্কারের পক্ষে বক্তব্য রাখেন। তবে ঢাকা ও চট্টগ্রামের কিছু প্রভাবশালী নেতা এই ঘটনাটিকে মনুনুল হকের ব্যক্তিগত বিষয় বলে অভিহিত করার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছিলেন। এ সময় মামুনুল হকের পক্ষে ও বিপক্ষে নেতারা উত্তপ্ত বিতর্কে জড়িয়ে পড়ে। এই হট্টগোলের মাঝে মামুনুল মামলার তদন্তের জন্য তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছিল। তদন্ত কমিটির নেতৃত্বে ছিলেন হেফাজতে ইসলামের নায়েবে আমির হাফেজ তাজুল ইসলাম।

আরও পড়ুনঃ 

তদন্ত কমিটির অপর দুই সদস্য হলেন সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মুফতি সাখাওয়াত হোসেন রাজী এবং ডাঃ নুরুল আবছার আজহারী। ২৯ মে হাটহাজারীতে অনুষ্ঠিত উলামা-মাশায়েখ সম্মেলনে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার জন্য কমিটিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল।হেফাজতের দাবি ও কর্মসূচি: হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী জরুরি সভা শেষে একটি ব্রিফিং দেন। হেফাজতে ইসলামের পক্ষ থেকে দাবি ও কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। ঘোষিত কর্মসূচির মধ্যে হেফাজতে ইসলাম নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার এবং গ্রেপ্তার হওয়া নেতাকর্মীদের মুক্তি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। লকডাউন থেকে মাদ্রাসা মুক্ত রাখা। 

রমজানে মসজিদটিকে তালাবন্ধ থেকে দূরে রাখুন এবং পুলিশি হয়রানি বন্ধ করুন। এ ছাড়া হাটহাজারী মাদ্রাসায় ২৯ মে জাতীয় উলামা মাশায়েখ সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন মাওলানা হাফিজ তাজুল ইসলাম, মাওলানা আবদুল আউয়াল, মাওলানা মুহাম্মদ ইয়াহিয়া, মাওলানা সালাহ উদ্দিন নানুপুরী, মাওলানা জুনাইদ আল-হাবিব, মাওলানা শোয়েব জামিরি, মাওলানা নাসির উদ্দিন মুনির, মাওলানা খুরশিদ প্রমুখ। হুসেন কাসেমী, মুফতি সাখাওয়াত হুসেন রাজি, মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী, মাওলানা জাকারিয়া নোমান ফয়জি, ডাঃ নুরুল আবছার আজহারী প্রমুখ।
 

আরও পড়ুনঃ Digital Marketing কী এবং এটি আপনার Business জন্য কেন গুরুত্বপূর্ণ
 

সূত্র : কালেরকণ্ঠ  

Leave a Reply