Education Loan : কিভাবে শিক্ষা লোন পাবেন – Education Loan ki kore nebo

education loan interest rate in bangladesh education loan bd islamic bank education loan sbi education loan education loan in islami bank bangladesh education loan eligibility education loan by government sonali bank education loan

শিক্ষা ঋণ নেওয়ার সহজ উপায়

অনেক পরিবার সন্তানদের উচ্চ শিক্ষার জন্য বিদেশে প্রেরণ করতে আগ্রহী হয়ে থাকে। দেশ বিদেশে উচ্চতর পেশাদার বা প্রযুক্তিগত শিক্ষা গ্রহনের জন্য যোগ্য শিক্ষার্থীদের প্রয়োজনীয় আর্থিক সহায়তা প্রদান করাই Education Loan মূল লক্ষ্য। শিক্ষার্থীদের যাবতীয় সহায়তা করে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করে ভবিষ্যতের কর্ণধার হিসেবে গড়ে তোলাই Students Loan মূল উদ্দেশ্য। Education Loan bd স্টুডেন্ট লোন একজন শিক্ষার্থীকে তার শিক্ষার উচ্চ শিখরে পৌঁছাতে সাহায্য করে। 
 

Education Loan দিচ্ছে এমন কয়েকটি প্রতিষ্ঠান:

দেশের অর্থনৈতিক মন্দা এবং মুদ্রাস্ফীতির কারণে কেন্দ্রীয় ব্যাংক ঋণদানেরখাতসমূহকে সন্কুচিত করে দিলেও বিশেষ সেবা প্রদান কর্মসূচির আওতায় দেশেরবেশ কয়েকটি বেসরকারি ব্যাংক প্রতিষ্ঠান student loans থাকে৷ এর প্রধানউদ্দেশ্য, উচ্চবিত্তদের পাশাপাশি মধ্যবিত্তরাও যেন উচ্চশিক্ষা গ্রহণেরসুযোগ পায়৷ কিছু কিছু ব্যাংক একে Career Loan বলে আবার কিছু ব্যাংক একেসরাসরি স্টুডেন্ট লোন বা Education Loan নামে অভিহিত করে৷ সাধারণত অভিভাবক অথবাসরাসরি শিক্ষার্থীদেরও এ ধরনের ঋণ দেওয়া হয়৷ তবে এ ক্ষেত্রে অভিভাবক অথবা শিক্ষার্থীদের ঋণ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের কিছু শর্ত মেনে ঋণ নিতেহয়৷
 
 

 

Education Loan: ঋণদানকারী প্রতিষ্ঠানের নাম

  • এইচএসবিসি ব্যাংক
  • ব্র্যাক ব্যাংক
  • প্রাইম ব্যাংক
  • ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড
  • উত্তরা ব্যাংক
  • গ্রামীন ব্যাংক

 

লোন উঠানোর যোগ্যতা/ Education Loan Eligibility

লোন পরিশোধে সক্ষম বিবেচিত যে কেউ এই ব্যাংকগুলো থেকে শিক্ষা ক্ষেত্রে ঋণনিতে পারে৷ সাধারণত সরকারি কিংবা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরতকর্মকর্তা-কর্মচারীকে যাদের বেতন ১২-১৮ হাজার টাকা তারাই এ লোনের সুবিধাপেয়ে থাকেন৷ ব্যবসায়ীদের ক্ষেত্রে আয়ের প্রমাণ সাপেক্ষে মাসিক আয়অবশ্যই ৫০ হাজার টাকা হতে হবে৷ ২৫ বছর থেকে ৬০ বছর বয়সের যে কেউ যোগ্যতাঅনুসারে ঋণ নিতে পারবেন৷
Education Loan নেওয়ার পদ্ধতি
অভিভাবকরা যদি তাদের সন্তানদের জন্য শিক্ষা নিতে আগ্রহী হন, তবে যেসবব্যাংক ঋণ দিয়ে থাকে সেগুলোর যেকোনো শাখায় গিয়ে মার্কেটিং/ক্রেডিটবিভাগে যোগাযোগ করতে হবে৷ সেখানে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাই আপনাকেবিস্তারিত জানিয়ে দেবেন৷ তবে এ ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় তথ্যাদি ও ডকুমেন্টযেমন-
 
আয়ের প্রমাণপত্র, কলেজ/বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তির সনদ ও ছাত্রছাত্রীরসম্মতিপত্র জমা দিতে হবে৷ ব্যাংক কর্তৃপক্ষ আপনার কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করেনূন্যতম সময়ে আপনার কাঙ্খিত ঋণ দিয়ে দেবে৷
 
HSBC student loans: এইচএসবিসি ছাত্র ঋণ
এইচএসবিসি থেকে ছাত্রঋণ নেয়ার শর্ত:
কোনো প্রকার ব্যক্তিগত গ্যারান্টি বা নগদ জামানত দিতে হয় না৷
ঋণ নিতে হলে অবশ্যই পরিবারের কোন সদস্যকে আয় করতে হবে এবং তার মাসিক আয় ১৮ হাজার থেকে ২২ হাজার হতে হবে৷
এইচএসবিসি ৫০ হাজার টাকা থেকে ৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা অথবা ঋণ গ্রহণকারীর মাসিক আয়ের ৪ গুণ পরিমাণ ঢাকা ঋণ দিয়ে থাকে৷

Education Loan Interest Rate In Bangladesh

ঋণের সুদের হার ১৮% তুলনামূলক কম সুদে এই ঋণ পরিশোধ করতে হয় ১২, ২৪, ৩৬, ৪৮ ও ৬০ মাসের মধ্যে৷ স্টুডেন্ট ফাইল খোলার সুবিধা আছে৷ যদি কোনো আউটপুট অথবা সিইপিএস গ্রাহক ছাত্রঋণ নিতে চায়, তবে তাকে ৬ ও ১০গুণ হিসেবেও ঋণ দেওয়া হয়৷ তবে তা সর্বোচ্চ ৭ লাখ ৫০ হাজার টাকার বেশিনয়৷
ঋণ নেয়ার জন্য যোগাযোগ করুন:
মার্কেটিং এন্ড পাবলিক রিলেসান্স ম্যানেজার
এইচএসবিসি ঢাকা মেইন অফিস
১/১- বি, সোনারগঁও রোড
ঢাকা- ১২০৫, বাংলাদেশ
ফোন- ০১১৮৮৫৬২৬ (ঋণ শাখ
০১১৮৮৪৭২২ (এইচএসবিসি অফিস)
তথ্যসূত্র: http://www.hsbc.com.bd

BRAC Bank Education Loan: ব্র্যাক ব্যাংক শিক্ষা ঋণ

ব্র্যাক ব্যাংকে সরাসরি Education Loan স্কিম না থাকলেও Personal Loan স্কিমের মাধ্যমে লোন দেয়৷
 
ব্র্যাক ব্যাংক শিক্ষাঋণের শর্তসমূহ –
  • দেশের বাইরে পড়াশুনার জন্য ঋণ প্রদান করে থাকে৷
  • কোন জামানত ছাড়া১০ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ গ্রহণ করা যায়৷
  • সবোর্চ্চ ঋণ দেয়ার পরিমান ৩০ লাখ টাকা
  • ঋণ পরিশোধ করার জন্য সময় পাওয়া যায় ১-৪ বছর৷
  • ঋণ পরিশোধের হার ১৫%
  • ব্যাংক একাউন্ট থাকতে হবে৷
  • বিদেশে যাওয়ার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে হবে৷
ঋণ নেয়ার জন্য যোগাযোগ করুন:
 
বাড়ি # ১,রোড # ১, গুলশান এভিনিউ
গুলশান -১, ঢাকা -১২১২, বাংলাদেশ
ঢাকা:গুলশান-৮৮২৪০৫৩, বনানী-৮৮৫৮৭ঌ৫, মতিঝিল-ঌ৫৫০৩০৭, নওয়াপাড়া -৭১২৫০০০, মগবাজার-ঌ৩৫৫৫৩৮-ঌ, কেরানীগঞ্জ-৭৭৭২৬৬১-২, ধানমন্ডি-৮১৫০১ঌ৮, সাভার-৭৭০২৫২৩-৪, সাতমসজিদ রোড-৮১২৬৬৫৬
চট্টগ্রা: আগ্রাবাদ- ০৩১-৮১২০৮ঌ
সিলেট: সিলেট- ০৮২১-৭২০১৮৮, জিন্দাবাজার-০৮২১-৮১৪৪৪১, বিয়ানীবাজার-০৮২২৩-৮৭৭৪৬
তথ্যসূত্র: http://www.bracbank.com

Prime Bank Education Loan: প্রাইম ব্যাংক শিক্ষা ঋণ

প্রাইম ব্যাংকের এডুকেশন লোন নামে একটি লোন স্কিম চালু আছে৷
 
প্রাইম ব্যাংক থেকে ঋণ নেয়ার শর্তসমূহ:
  • শিক্ষা ঋণ ছাত্র বা ছাত্রীর অভিভাবককে দেয়া হবে৷ অভিভাবকের আয় অনুযায়ী ঋণের পরিমাণ নিধারন করা হয়৷
  • এ লোন স্কিম থেকে আগ্রহীরা ১-৩ লাখ টাকা পর্যন্ত লোন নিতে পারেন৷
  • পরিশোধের সর্বোচ্চ সময়সীমা ২ বছর৷
  • এ জন্য প্রাইম ব্যাংকে শতকরা ১৫ শতাংশ হারে সুদ প্রদান করতে হয়৷
  • শিক্ষার্থীকে তার প্রয়োজনীয় সব কাগজপত্র জমা দিতে হবে৷ এবং খরচেরপরিমাণের ভিত্তিতে লোন দেয়া হয়ে থাকে ৷ 
ঋণ নেয়ার জন্য যোগাযোগ করুন:
 
আদমজি কোর্ট,এনেক্স ভবন-২,১১ঌ-১২০
মতিঝিল সি/এ, ঢাকা -১০০০ বাংলাদেশ
ফোন – ঌ৫৬৭২৬৫,ঌ৫৬৭০৭৪৭-৮ ( পিএবিএক্স)
ফ্যাক্স ৮৮০-২-ঌ৫৬৭২৩০,ঌ৫৬০ঌ৭৭,৮৮০-২-ঌ৫৬৬২১৫
টেলেক্স – 642459 PRIME BJ,671543 PBL MJ BJ
ই-মেইল-info@prime-bank.com, primebnk@bangla.net
ওয়েব সাইট -http://www.prime-bank.com
তথ্যসূত্র :http://www.prime-bank.com

Islami Bank Limited Education Loan: ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড শিক্ষাঋণ

 
ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড থেকে শিক্ষাঋণের শর্তসমূহ:
ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড বিভিন্ন শিক্ষা উপকরণ ক্রয়ের ক্ষেত্রে এইচডিএসনামের স্কিমের আওতায় পণ্যসামগ্রীর মূল্যের এক-চতুর্থাংশ ডাউন পেমেন্টনিয়ে লোন দেয়৷ এ জন্য অবশ্য প্রতি বছর ১২.৫০ শতাংশ এবং সুপারভিশন চার্জহিসেবে ২ শতাংশ হারে শোধ করতে হয়৷ এখানে মাসিক কিস্তিতে সর্বোচ্চ ২ বছরের মধ্যে পণ্যের মূল্য পরিশোধ করেত হয়৷
 
 
ঋণ নেয়ার জন্য যোগাযোগ করুন:
ইসলামি ব্যাংক টাওয়ার
৪০, দিলকুশা C/A
ঢাকা-১০০০,বাংলাদেশ
ফোন-ঌ৫৬০০ঌঌ, ঌ৫৬৭১৬১,ঌ৫৬৭১৬২, ঌ৫৬ঌ৪১৭
টেলিক্স-642525 IBANK BJ 632403 IBANK BJ 671620 IBANK BJ
ফ্যাক্স-৮৮০-২-ঌ৫৬৪৫৩২, ৮৮০-২-ঌ৫৬৮৬৩৪
ই-মেইল-info@islamibankbd.com
ওয়েবসাইট – http//www.islamibankbd.com
তথ্যসূত্র :http://www.islamibankbd.com

Student loan কি?

শিক্ষার্থীকে কর্মজীবনকে সমৃদ্ধ ও উন্নত করে গড়ে তোলার জন্য গতানুগতিক ডিগ্রীর পাশাপাশি উন্নত ও উচ্চ পর্যায়ে বিভিন্ন ডিগ্রী অর্জন করতে প্রচুর অর্থের প্রয়োজন হয়। আগ্রহী শিক্ষার্থীর শিক্ষার সুযোগ করে দিতে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো দীর্ঘমেয়াদে যে ঋণ দেওয়া হয় তাই স্টুডেন্ট লোন (student Loan)/শিক্ষা ঋণ নামে পরিচিত। যদিও স্টুডেন্ট লোন দেশী এবং বিদেশী সকল ধরনের উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে ঋনের সুবিধা দিয়ে থাকলেও বেশিরভাগ ক্ষেত্রে উচ্চশিক্ষার তাগিদে বিদেশগামী শিক্ষার্থীরা এই ঋণ নিয়ে থাকে। এক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের পরিবার বিদেশে উচ্চশিক্ষার জন্য খরচ যোগাতে সক্ষম থাকলেও পরিবারগুলো তাদের ব্যক্তিগত ব্যাংক একাউন্টগুলোতে নির্দিষ্ট অংকের নগদ অর্থের পর্যাপ্ত ভারসাম্য দেখাতে পারেন না। ফলে অনেক ভালো শিক্ষার্থীর বিদেশী শিক্ষার স্বপ্ন পূরনের ইচ্ছা অপূর্ণ থেকে যায়। এরই সুবাদে স্টুডেন্ট লোন বিদেশগামী উচ্চশিক্ষার জন্য আবেদনকারী শিক্ষার্থীদের জন্য একটি অন্যতম সুবিধা।

Student Loan কারা দিচ্ছে?

সাধারণত অভিভাবকদের মাধ্যমে সরাসরি শিক্ষার্থীদের এ ধরনের ঋণ দেওয়া হয়। বাংলাদেশের প্রায় প্রতিটি ব্যাংক শিক্ষার্থীদের জীবন সহজ এবং সরল করতে সহায়তা করার জন্য বিভিন্ন ধরনের Education Loan বা ক্রেডিট সরবরাহ করে। স্টুডেন্ট ঋণ দানকারী প্রতিষ্ঠান সমূহের নাম যেমন-এইচ এস বিসি ব্যাংক, ব্র্যাক ব্যাংক, প্রাইম ব্যাংক, ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড, উত্তরা ব্যাংক, গ্রামীণ ব্যাংকসহ আরো অন্যান্য আর্থিক প্রতিষ্ঠান। ব্যাংকগুলো নূন্যতম সুদের তুলনায় গ্রাহকদের সহায়তা করার জন্য অনেক আকর্ষণীয় অফার দিয়ে থাকে।
 

 

  • স্থানীয় প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে লোনের পরিমান ৫০,০০০ – ৩,০০,০০০ টাকা প্রায়।
  • বিদেশি প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে লোনের পরিমান ১,০০,০০০ – ৪০,০০,০০০ টাকা প্রায়।
  • সময়সীমা /মেয়াদঃ বিদেশি প্রতিষ্ঠানের জন্য ১২- ৪৮ মাস এবং স্থানীয় প্রতিষ্ঠানের জন্য ১২-১৮ মাস পর্যন্ত সময়সীমা নির্ধারণ করা হয়।
  • স্টুডেন্ট লোন মূলতঃ ১২% সুদের হারে লোন প্রদান করা হয়।

 

Student Loan কারা নিচ্ছে?

সাধারণত দেশের বাইরে পড়াশোনা করার জন্য এইচএসসি পাশের পর স্নাতক বা স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জনের উদ্দেশ্যে অভিভাবকদের সহায়তায় সরাসরি শিক্ষার্থী স্টুডেন্ট লোন বা Education Loan নিয়ে থাকে। অভিভাবকদের ইচ্ছা পূরনের লক্ষ্যে শিক্ষার্থীদের উচ্চ শিক্ষা অর্জনের জন্য বিদেশে শিক্ষার উদ্দেশ্যে প্ররণের জন্য ব্যাংক সমূহ দীর্ঘমেয়াদি ঋণ প্রদানের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের স্বপ্নপূরনে সহায়তা করছে। ২৫-৬০ বছর বয়সের যে কেউ যোগ্যতা অনুসারে ঋণ নিতে পারবে। ঋণ নেওয়ার জন্য অবশ্যই পরিবারের যে কোন সদস্যের মাসিক আয় সর্বনিম্ন ২৫০০০ টাকা হতে হবে।
 

Education Loan Eligibility 

লোন নেয়ার জন্য যে সকল উপযোগিতার প্রয়োজন হয় তা বর্ণিত হলো: 
 
1. আবেদনকারী ও গ্যারান্টারের জাতীয় পরিচয়পত্র থাকতে হবে।
2. আবেদনকারী ও গ্যারান্টারের সদ্যতোলা ছবি থাকতে হবে।
3. বিভিন্ন ইউটিলিটি বিল যেমন-(গ্যাসবিল,ইলেক্ট্রিক বিল,ওয়াসা বিল) ইত্যাদির ফটোকপি থাকতে হবে।
4. গ্যারান্টার যদি প্রফেশনাল হয় তবে মাসিক আয় নূন্যতম ৩০০০০ টাকা হতে হবে।
5. গ্যারান্টার যদি ব্যবসায়ী হয় তবে মাসিক আয় নূন্যতম ৫০০০০ টাকা হতে হবে।
6. আবেদনকারী শিক্ষার্থীকে নূন্যতম এইচএসসি পাশ হতে হবে।
7. বিদেশে পড়াশোনার ক্ষেত্রে আবেদনকারীর বৈধ বাংলাদেশী পাসপোর্টের ফটোকপি থাকতে হবে।
8. ভর্তি এবং ভিসার আনুষ্ঠানিকতা পাাওয়ার জন্য সকল ধরনের পূর্বশর্ত বা নীতিমালা পূরণ করতে হবে। 
9. আবেদনকৃত শিক্ষার্থীর পরীক্ষায় পাশের সনদপত্রের প্রমান দেখাতে হবে। 
10. যে শিক্ষার্থীর জন্য লোন নেওয়া হবে তার কাছে অনুমোদনের চিঠি থাকতে হবে।
11. কোন প্রকার খারাপ খ্যাতি যেমন – ফৌজদারি রেকর্ড , রাজনৈতিক কাজে সংযোগ থাকার রিপোর্ট ইত্যাদি।
12. শিক্ষার্থী ও গ্যারান্টারের ড্রাইভিং লাইসেন্স,টিআইএন সার্টিফিকেট (যদি থাকে) এর ফটোকপি থাকতে হবে।
13. জামানতদারের বেতন/আয় প্রশংসাপত্রের নিট আয়ের বিবরনী থাকতে হবে।
14. শিক্ষার্থীর বৈধ ভিসার সাথে পাসপোর্টের অনুলিপি থাকতে হবে (যেখানে প্রযোজ্য)।
15. শিক্ষার্থীর শিক্ষার প্রশংসাপত্রের কপি থাকতে হবে।
16. অভিভাবক ও আবেদনকারীর বায়োডাটা দিতে হবে।
17. আবেদনকারী ও অভিভাবক উভয়ই যদি নিয়োগকর্তার নিকট বেতন প্রশংসাপত্র জমা দিতে হবে।
18. নির্বাচিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রোফাইল জমা দিতে হবে।
19. শিক্ষার্থীকে অধ্যায়নের জন্য নিয়োগকর্তার এনওসি কপি জমা দিতে হবে।
 
 
বন্ধুরা, আজকের পোস্টে এটাই। আজ আমরা শিখেছি কিভাবে আমরা  Education Loan লোণের জন্য আবেদন করতে পারি। Bank থেকে আমরা কত লোণ পেতে পারি, Bank থেকে লোন নেওয়ার জন্য কি কি ডকুমেন্টস লাগবে, Bank থেকে লোন নেওয়ার শর্ত কি এবং আরো অনেক কিছু আমরা আজকের এই পোস্টে করেছি। বন্ধুরা, যদি আপনি এই পোস্টটি পছন্দ করেন, তাহলে এটি শেয়ার করুন।

 

Leave a Reply