১০০ কোটি টাকায় এটা কি বানিয়েছেন অনন্ত জলিল?

১০০ কোটি টাকায় এটা কি বানিয়েছেন অনন্ত জলিল?

দুরবিন নিউজ২৪,dorbinnews24,Bangla News, bangla News paper,Bangla All News paper List,bangla khobor,Bollywood,hindi movie,new movie 2021,tamil movie দুরবিন নিউজ২৪,dorbinnews24,how to earn money online without investment,how to make money online in nigeria,how to earn money online with google,how to earn money online without paying anything,how to earn money online for students,how to earn money online in india,how to earn money online in bangladesh,how to earn money online philippines,how to make money online for free

 

এবার অনন্ত জলিলের পূর্বের সব সিনেমার বাজেট ছাড়িয়ে গেছে সিনেমা ‘দ্বীন দ্য ডে’ ব্যয় ছাড়িয়ে গেছে। অনন্ত নিজেই বলেছিলেন যে এই সিনেমার বাজেট ১০০ কোটি টাকা।কেন ১০০ কোটি টাকা ব্যয় হচ্ছে? অনন্ত গণমাধ্যমকে বলেছিলেন যে সিনেমার পটভূমি দেখলেই শ্রোতারা সিনেমাটির ব্যাকগ্রাউন্ড এবং সুযোগ বুঝতে পারবেন এই সিনেমাটি কেবল আমাদের দেশের জন্যই নির্মিত হচ্ছে না, এটি একটি আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র। 

হলিউড-বলিউডে যে সিনেমাগুলি হয় সেগুলি আন্তর্জাতিক বাজারকে সামনে রেখেই তৈরি করা হয়। আমার চলচ্চিত্রটিও সে লক্ষ্যে নির্মিত হচ্ছে। আফগানিস্তান, ইরান, বাংলাদেশ ও তুরস্কে শুটিং হয়েছে।বাজেট ও লোকেশন নিয়ে কথা বললে ছবিটির টিজার সমালোচিত হয়েছে। ট্রলগুলি সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে চলছে। নেটিজেনরা বলছেন, ‘এটি মুভি নয়, আলিফ লায়লা।’ 

অনেকে অনন্ত জলিলের ফেসবুক পেজে কঠোর সমালোচনা করছেন। অনেকে এটিকে ‘ক্ষ্যাত’ বলেও আখ্যায়িত করছেন অনেকে।তবে সবচেয়ে আশ্চর্যের বিষয় হ’ল টিজারটি অনন্ত জলিলের অফিশিয়াল ফেসবুক পেজে প্রকাশিত হয়েছে, যেখানে ১৭  হাজার মানুষ সাড়া ফেলেছে। ১০ হাজারেরও বেশি ‘হা হা হা’ হাস্যকর প্রতিক্রিয়া।হাবিব নামের এক ব্যক্তি মন্তব্য করেছিলেন, ‘আলিফ লায়লা যুগে এখন আর কেউ ভিএফএক্স খায় না! 

ভাই, দেশে অনেক প্রতিভাবান ভিএফএক্স শিল্পী আছেন, এ জাতীয় সি গ্রেড ভিএফএক্স আপনার এ গ্রেড চলচ্চিত্রের জন্য উপযুক্ত নয়। শুধু শুধু এদের পেছনে টাকা না ঢেলে যারা ভালো ভিএফএক্স আর্টিস্ট ওদেরকে হায়ার করেন। এ জাতীয় ভুগিছুগি জিনিসগুলির কারণে ভাল জিনিস কলঙ্কিত হয়।খালেদ মনসুর নামের এক ব্যক্তি লিখেছেন,’১০০ কোটি টাকা খরচ করে এই গু বানাইছেন বস? 

রেলস্টেশনের পাশের মোবাইল দোকানে বসে থাকা ছোট্টরা আরও ভাল করে এডিট করতে পারে – তাদের এমনকি ভিএফএক্সের দরকার নেই। আসলে, এই ট্রেলারটি দেখার পরে আমি আপনার নিঃস্বার্থ ভালবাসাকে পছন্দ করতে শুরু করি। একটি ভাল উপায়ে অর্থ বিনিয়োগ করুন। এই অখাদ্য পাবলিক খাবার খাবেন না।আলমিরাজ নামের এক ব্যক্তি মন্তব্য করেছিলেন, ‘এ কি রে ভাই? 

পাবজির গ্রাফিক্স এর চেয়ে একশগুণ ভাল। দুঃখ দেখে দুঃখ পেয়ে গেলাম। ‘তানজিল রাফিন নামের এক ব্যক্তি মন্তব্য করেছেন, ‘কী অ্যানিমেশন রে ভাই। জেটপ্লেনের গ্রাফিকগুলি মোটু পাতলুর মতো ছিল। এবং যে গাড়িটি ফাটিয়েছে তা হ’ল একটি প্রাচীন ভিএফএক্সও। এবং এই মুভিটি ১০০ কোটি দিয়ে তৈরি। আমি কেবল এতটাই বলতে পারি যে প্রযোজক পথে বসতে চলেছেন।

অবশ্যই কিছু লোক এটিকে বাণিজ্যিক কৌশল হিসাবেও গ্রহণ করে, একজন লিখেছেন, ‘অনন্ত জলিল জন্মগত ব্যবসায়ী কোনও ট্রেলার ভাইরাল হওয়া কীভাবে সহজ করবেন তা তিনি খুব ভাল জানেন। ভালো ভালো সিনেমার ট্রেইলারে ভিউ শেয়ার আসে না। ভিউ, শেয়ার আসে এসব সস্তা কাজে।দীপ্ত নামে এক ব্যক্তি লিখেছেন, ‘হাসি দ্য স্মাইল’ আসছেএইটা দেখে। আপনারে এইগুলা ভুংভাং করে বানায় দে কে? 

প্লিস ওরে ‘লাত্থি দ্য কিক’ মেরে তাড়ান। আপনি এত ভাল কাজ করেন। এইগুলা করে হাসির পাত্র হয়ে আর কত দিন থাকবেন?একজন লিখেছেন, ‘আপনি বড় ব্যবসায়ী হতে পারেন তবে সিনেমার নায়ক হিসাবে আপনি সর্বদা জিরো। এইটাকে মুভির ট্রেইলার বলে? এটি যদি ট্রেলার হয় তবে আপনি শুনেছেন যে পৃথিবীর ইতিহাসে এর চেয়ে খারাপ ট্রেলারটি আর কখনও ঘটেনি। 

আপনার যেহেতু প্রচুর অর্থ আছে, তাই আপনি ভাল নায়ক এবং ভাল গল্প ভিত্তিক ছবি তৈরি করেন। এবং আপনার স্ত্রীর অভিনয় জঘন্য। দয়া করে সিনেমার নামে এই গুলা বানাবেন না।গতকাল প্রকাশিত এই টিজারে এরকম শত শত নেতিবাচক মন্তব্যে ভরপুর। টিজার নিয়ে বিভিন্ন চলচ্চিত্র গ্রুপেও সমালোচনা হচ্ছে।

টিজার দেখতে ক্লিক করুন

Leave a Reply