অনলাইন বিজনেস করতে হলে একটা ওয়েবসাইট অবশ্যই প্রোয়োজন

অনলাইন বিজনেস করতে হলে একটা ওয়েবসাইট অবশ্যই প্রোয়োজন

How to earn money from Home,how to earn money online without investment,দুরবিন নিউজ২৪,dorbinnews24,how to earn money online with google,how to earn  how to earn money online without investment,how to make money online in Quora,how to earn money online with google,how to earn money online without paying anything,how to earn money online for students,how to earn money online in india,how to earn money online in bangladesh,how to earn money online philippines,how to make money online for free  Best Social email marketing,Social Media Marketing,How to Ern money,How to Make Money, Hoe to earn monet online, make money online,Dorbinews24,Online job,Online Job From Home

বিজনেস ছোট হোক কিংবা বড় হোক প্রত্যক টা বিজনেসই কিছু সঠিক পরিকল্পনা থাকা দরকার । দীর্ঘমেয়াদী সঠিক পরিকল্পনা না থাকলে আপনি হয়ত সাময়িক সময়ের জন্য কিছুটা লাভবান হবেন কিন্ত আপনার বিজনেস দীর্ঘ মেয়াদে তেমন সফলতার মুখ নাও দেখতে পারে। তাই বিজনেসে সফল হতে হলে সঠিক ও সময়োপযোগী পরিকল্পনা থাকা দরকার।
 
আজ আমি বলবো আপানার দীর্ঘমেয়াদী অনলাইন বিজনেস পরিকল্পনা হিসেবে ওয়েবসাইট এর গুরুত্ব সম্পর্কে –
 
বিস্তারিত জানতে ধৈর্যধরে শেষ পর্যন্ত পড়ুন।
একটা ওয়েব সাইট আপনাকে অনেক গুলো সুবিধা দিয়ে থাকে যা সাধারনত সোশ্যাল মিডিয়া নির্ভর বিজনেস দেয় না। হয়ত সোশ্যাল মিডিয়া গুলো আমাদের কে অনেক সুবিধা ই দিয়ে থাকে কিন্তু সেখানেও অনেক লিমিটেশন থাকে তাই সঠিকভাবে দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা করা অনেক ক্ষেত্রেই সম্ভব হয়ে ওঠে না।
 
একটা ভাল মানের ওয়েব সাইট ই পারে এসব লিমিটেশন কিছুটা হলেও দূর করতে। চলুন জেনে নেওয়া যাক ই-কমার্স বা অনলাইন নির্ভর বিজনেসে ওয়েবসাইট এর সুবিধা সম্পর্কে-
সুবিধা নাম্বার – ১- আপনার বিজনেসের নিজস্ব আইডেনটিটিঃ
বর্তমানে ফেসবুকে মিলিয়ন মিলিয়ন বিজনেস পেজ রয়েছে, এত ফেসবুক পেজের ভীরে আপনার বিজনেস কে আপনি কখনই একটি দীর্ঘমেয়াদী একক আইডেনটিটি দিতে পারবেন না । ইন্টারনেটের এই বিশাল জগতে আপনার নিজস্ব ওয়েবসাইটেই পারে আপনার ব্যবসাকে একটি ইউনিক পরিচয় দিতে এবং ব্র্যন্ড হিসেবে সবার সামনে প্রতিষ্ঠিত করে তুলতে। আমাজন, ই-বে, আলীবাবা, ফ্লিপকার্ট কিংবা আমাদের দেশের দারাজ, রকমারি, পিকাবো – এরা সকলেই নিজেদেরকে প্রতিষ্ঠিত করেছে নিজস্ব ওয়েবসাইটের মাধ্যমে। এদের কাছে, ফেসবুক পেজ কেবলমাত্র একটি প্রমোশনের মাধ্যম। তারা ফেসবুক বিজনেস পেজ কে শুধু ব্যবহার করে ওয়েবসাইটে ট্রাফিক নিয়ে যাওয়ার জন্য।
 
আপনার যদি নিজস্ব আইডেনটিটি অথবা ব্র্যান্ড প্রতিষ্ঠা করার ইচ্ছে থাকে তাহলে আপনার অবশ্যই একটা ওয়েব সাইট প্রোয়োজন।
 
সুবিধা নাম্বার – ২- আপনার বিজনেসের বিশ্বাসযোগ্যতা বাড়াবে।
বর্তমানে মানুষ অনেক বেশি স্মার্ট অনলাইন সম্পর্কে সবারই একটু -আধটু ধারনা আছে। সবাই জানে যে কত সহজে একটা বিজনেস পেজ তৈরি করে অনলাইন বিজনেস স্টার্ট করা যায়। প্রক্রিয়াটি এত সহজ বলে এখানে ক্রেতাদের প্রতারিত হবার সম্ভাবনা অনেক বেশি থাকে। অনেক ক্রেতা প্রতিনিয়ত প্রতারিতও হয়ে থাকেন তাই অনেকেই এখন ফেসবুক বিজনেস পেজে আস্থা ও বিশ্বাস রাখতে পারেন না । এই অবস্থায় একটি ভালমানের ওয়েবসাইট, খুব সহজেই একজন কাস্টমারের বিশ্বাস অর্জন করতে পারে। এর কারন হল একটা ওয়েব সাইট হল একটা স্থায়ী আইডেনটিটি তাই সবাই এটাতে নির্দ্বিধায় বিশ্বাস রাখতে পারে।
 
বিজনেস করতে গেলে কাস্টমারের বিশ্বাস ও আস্থা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ন আর এ কারনে আপনার একটা ওয়েবসাইট অবশ্যই প্রোয়োজন।
 
সুবিধা নাম্বার – ৩ – বিজনেসের স্থায়ী কাস্টমারের সংখ্যা বৃদ্ধি করেঃ
যখন চারদিকে এত এত প্রতারিত হওয়ার খবর শোনা যাচ্ছে এমতবস্থায় আপনি যদি আপনার ওয়েব সাইট থেকে খুব ভাল ধরনের সার্ভিস প্রোভাইড করেন ও গুড কোয়ালিটি প্রোডাক্ট সেল করেন তখন আপনার কাস্টমার আর অন্যদিকে সুইচ করবে না , তারা আপনার স্থায়ী কাস্টমার হয়ে যাবে ও রিপিট কাস্টমার হিসেবে বিনাদ্বিধায় আপনার প্রোডাক্ট / সার্ভিস কিনবে। এই ব্যাপারটা আপনি নিজেকে দিয়েই বুঝতে পারেন আপনি সব সময় এমন জায়গা থেকে কিনতেই বেশি পছন্দ করেন যেখান থেকে আপনি সব থেকে ভাল কোয়ালিটির প্রোডাক্ট পেয়েছেন।
 
তাই আপনি যদি আপনার বিজনেসের স্থায়ী কাস্টমার সংখ্যা বৃদ্ধি করতে চান তাহলে আপনার অবশ্যই একটা ওয়েবসাইট প্রোয়োজন।
সুবিধা নাম্বার – ৪- বিজনেসের স্থায়ীত্বতা দিবেঃ
আপনি এখন ফেসবুক বিজনেস পেজে আপনার প্রোডাক্ট সেল করছেন তাই তো? আচ্ছা আপনি বলেন তো ফেসবুক যদি এখন তাদের ওয়েব সাইট পার্মানেন্টলি বন্ধ করে দেয় অথবা কোনা ইস্যু তে আপনার বিজনেস পেজটি বন্ধ করে দেয় তাহলে আপনি কি করবেন?
 
যদিও ফেসবুকের এমন টা করার কোন সম্ভাবনা নাই তারপরও বলছি কারন এটার ক্ষমতা আপনার হাতে নাই আর তাছাড়া ফেসবুক তাদের টার্মসে প্রতিনিয়ত যত পরিবর্তন নিয়ে আসছে তাতে করে হয়তো এক সময় ফেসবুকে বিজনেস করাটা অনেক কঠিন হয়ে পড়বে।
 
ইতিমধ্যেই অর্গানিক রিচ না হওয়া, অ্যাড অ্যাকউন্ট ডিজেবল হওয়ার মত অনেক সিরিয়াস ইস্যুতে পড়ছেন অনেকেই।
 
তাই এখনই সময় আপনার বিজনেসের সব এক্সেস নিজের হাতে রেখে বিজনেসের স্থায়ীত্ব দেওয়ার আর এ জন্যই আপনার একটা ওয়েবসাইট প্রোয়োজন, অবশ্যই প্রোয়োজন।
 
সুবিধা নাম্বার – ৪- একই জায়গায় সব প্রোডাক্ট দেখানোঃ
আপনার অফার করা প্রোডাক্টগুলো যত সহজে এবং যত সুন্দর করে আপনি আপনার কাস্টমার দের কে দেখাইতে পারবেন আপনার সেল হওয়ার চান্স তত বেশি থাকবে। আর ওয়েব সাইটের মাধ্যমে এই কাজ খুব সুন্দর ভাবে করা যায়। একটা ই-কমার্স ওয়েব সাইটে সব গুলো প্রোডাক্ট সুন্দভাবে , অর্গানাইজড ভাবে উপস্থাপন করার সুযোগ দেয়। ফলে একই জায়গায় আপনার কাস্টমার আপনার সবগুলো প্রোডাক্ট দেখার সুযোগ পায় ও ফলে ইউজার এক্সপেরিয়েন্স অনেকগুন বেড়ে যায় এ কারনে সেল ও বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।
 
তাই আপনার আপনার একটা ওয়েবসাইট প্রোয়োজন।
 
সুবিধা নাম্বার – ৫- খুজে পাওয়া সহজঃ
আপনি হয়ত নিজেই যখন কিছু কিনতে চান তার আগে গুগলে সার্চ করে কোন একট ওয়েব সাইট থেকে অর্ডার করেন যেখান থেকে আগে ভাল পন্য পেয়েছেন হয়ত সেই ওয়েবসাইট এর নাম লিখেই সার্চ দেন। আপনার ব্যবসায়িক ওয়েবসাইট থাকলে আপনার সম্ভাব্য গ্রাহকরা অনলাইনে আপনার এবং আপনার কোনও পণ্য সম্পর্কে এভাবে সহজেই জানতে পারবেন।

একটা কথা মনে রখাবেন ফেসবুকে মানুষ কোন কিছু কিনতে আসে না, ফেসবুকে মানুষ আসে যোগাযোগ করার জন্য, লেটেষ্ট কোন নিউজ আপডেড পেতে অথবা বিনোদোন নেওয়ার জন্য,কিন্তু ওয়েবসাইটে সবাই পন্য কিনতেই আসে।

তাই আপনার একটা ওয়েবসাইট প্রোয়োজন , হ্যা অবশ্যই প্রোয়োজন!
 
 
সুবিধা নাম্বার – ৬ – সব সময় অটোমেটিক ব্যবস্যা পরিচালনাঃ
কেউই অনেক বেশি রাতে কাজ করতে চায় না, তবে আমাদের কেউ কেউ ঐ সময়ে কেনাকাটা করতে পছন্দ করে থাকেন। আপনার ওয়েবসাইট থাকা মানে কিন্তু আপনাকে ঐ সময়ে অনলাইনে উপস্থিত থাকতে হবে এমনটা কিন্তু নয়। কোনও ব্যবসার ওয়েবসাইট বা ই-কমার্স স্টোর থাকা মানেসব সময়েই আপনার প্রোডাক্ট বিক্রয় করতে পারবেন – কেবলমাত্র একটা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্য সীমাবদ্ধ নয়। গ্রাহক তার সুবিধামত সময়ে কেনা-কাটা করতে পারবে, যখন ইচ্ছা তখন।
 
তাই সব সময়ে ব্যবস্যা পরিচালনা করতে চাইলে আপনার একটা ওয়েবসাইট অবশ্যই প্রোয়োজন
 
সুবিধা নাম্বার – ৭- সঠিক কাস্টমারের কাছে প্রোমোশনঃ
যদিও আমি এটা সবার শেষে ৭ নাম্বার দিয়ে লিখেছি তারপরও আমার মনে হয় ওয়েব সাইটের এটাই সব থেকে গুরুত্বপূর্ন সুবিধা। আচ্ছা বলুন তো, আপনি কি এমন কারো কাছে বিজ্ঞাপন দিতে চাইবেন যে আপনার প্রোডাক্ট কিনবে না , না কি এমন কারো কাছে বিজ্ঞাপন দিতে চাইবেন আপনার প্রোডাক্ট যাদের কেনার সম্ভাবনা অনেক বেশি? ওয়েবসাইটের মধ্যমে ভিজিটর দের ট্র্যাক করে তাদের একশন এনাইলাইসিস করে তাদের আচরন সম্পর্কে জানা যায় ফলে সেভাবে মার্কেটিং প্ল্যান তৈরি করে প্রোমোশন করা যায় এতে করে অনেক কম খরচে প্রোমোশন করা যায় ফলে সেল বৃদ্ধিপায় অনেক গুন
 
সব শেষে বলবো আপনি যদি আপনার আপনার বিজনেস কে নেক্সট লেভেলে নিয়ে যেতে চান ও দীর্ঘমেয়াদী অনলাইন বিজনেসের ভিত তৈরি করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনার বিজনেসের জন্য ভাল মানের একটা ওয়েব সাইট তৈরি করে নিন। এটা আপনার প্রোয়োজন।
আর যারা ইতিমধ্যে তৈরি করে ফেলেছেন তাদের জন্য শুভ কামনা!


তাহলে এবার বলুন তো, আপনার বিজনেসের জন্য ওয়েব সাইট তৈরি করেছেন কি?

অলিউর রহমান রকিব
ডিজিটাল মার্কেটার ও ওয়েব ডেভেলপার
Biswas Digital Solution.

Leave a Reply